চল্লিশ পেরোলেই চালশে

মানুষের বয়স যখন চল্লিশ তখন লেখা পড়তে কষ্ট হয়। চল্লিশোর্ধ্ব প্রতিটি ব্যক্তিই একটি সাধারণ সমস্যায় আক্রান্ত হন। যার নাম হলো প্রেসবাইওসিয়া, প্রচলিত বাংলায় চালশে। চালশে শব্দটি চল্লিশ থেকে এসেছে। চালশে কোনো অসুখ নয়। এটি স্বাভাবিক দৃষ্টির ত্রুটি, যা বয়স্ক প্রতিটি মানুষেরই কমবেশি হয়।

চালশে কী?

একটু বয়স্ক (চল্লিশ বা তদূর্ধ্ব) ব্যক্তিদের স্বাভাবিক দর্শনের নিকটবিন্দু ২৫-৩৫ সে.মি.। স্বাভাবিক বয়োবৃদ্ধির কারণে এ নিকটবিন্দু দূরে সরে যাওয়ার নাম চালশে। এর ফলে কাছের বস্তু দেখতে অসুবিধা হয়। পড়াশোনা ও সূক্ষ্ম কাজে ব্যাঘাত ঘটে।

কেন হয়?

চোখের উপযোগী বা প্রতিবিম্ব স্থাপন ক্ষমতা ক্রমে হ্রাস পাওয়ার কারণে এমন হয়। নিকটবর্তী বস্তু দেখার জন্য চক্ষু লেন্স এবং পেশির সমন্বয় ঘটানোর নাম উপযোজন। উপযোজন ক্ষমতা হ্রাস পায় বেশকিছু কারণে — লেন্স শক্ত হয়ে গেলে। — লেন্স ক্যাপসুলের স্থিতিস্থাপকতা কমে যাওয়ার জন্য। — সিলিয়ারি পেশির (চক্ষুপেশি) দুর্বলতার জন্য। মনে রাখতে হবে এগুলো সব স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। তাই বয়স বাড়লে এমনটি ঘটবে।

লক্ষণসমূহ

ছোট ছোট লেখা যেমন বই, পত্রিকা ইত্যাদি পড়তে অসুবিধা হওয়া। সাধারণত মৃদু আলোয় এ অসুবিধা বেশি হয়। যারা সূক্ষ্ম কাজ করেন তাদের কাজে অসুবিধা হওয়া। যেমন : সেলাই করা, জাল বোনা ইত্যাদি। মাথাব্যথা অন্যতম একটি লক্ষণ, মাথাব্যথার অন্য কোনো কারণ না পাওয়া গেলে এবং বয়স চল্লিশের বেশি হলে অবশ্যই চালশের কথা চিন্তা করতে হবে এবং চক্ষুবিশেষজ্ঞের সঙ্গে পরামর্শ করতে হবে। চল্লিশ এবং চল্লিশোর্ধ্ব সবাই চালশেতে আক্রান্ত হন। কিন্তু যাদের গুড়ঢ়রধ (দূরের জিনিস দেখতে সমস্যা) থাকে তারা অনেক সময় বার্ধক্যজনিত দৃষ্টিত্রুটি তথা চালশের ব্যাপারটি নাও বুঝতে পারেন। যাদের সূক্ষ্ম কাজ এবং পড়াশোনা করতে হয় না, তাদের ক্ষেত্রে চালশে সাধারণত অপ্রকাশিত থাকে।

চল্লিশের আগে চালশে

চল্লিশের আগেও চালশে হতে পারে। একে আর্লি প্রেসবায়োপিয়া বলা হয়। এটি স্বাভাবিক ঘটনা নয়। এক্ষেত্রে অবশ্যই চক্ষুবিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে এবং গ্লোকোমার পরীক্ষা করে দেখতে হবে। এক্ষেত্রে ডায়াবেটিসের ব্যাপারটিও মাথায় রাখতে হবে। ডায়াবেটিসের পরীক্ষা এবং চিকিত্সকের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে।

চিকিসা

চালশের চিকিত্সাকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়। নন সার্জিক্যাল চিকিত্সা : গোলাকার উত্তল লেন্স দিয়ে চিকিত্সা দেয়া হয়। তবে দূরের বস্তু দেখতে অসুবিধা থাকলে সেটিরও চিকিত্সা দেয়া হয় প্রয়োজনীয় ক্ষমতার লেন্স ব্যবহার করে। বয়স অনুযায়ী এসব ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন লেন্স দিয়ে থাকেন ডাক্তাররা।

সার্জিক্যাল চিকিত্সা

চালশের জন্য কিছু সার্জিক্যাল চিকিত্সাও রয়েছে। এই ব্যবস্থাগুলো জনপ্রিয় নয় এবং ব্যয়সাপেক্ষ। এগুলো খুব কম ক্ষেত্রেই ব্যবহৃত হয়। এরকম একটি ব্যবস্থা হলো জব ুড়ড়স ষবহং ব্যবহার। বয়স বাড়লে যেমন চুল পাকে তেমনি চোখের কার্যক্ষমতা কমে যায়। সঠিক চিকিত্সা, সাবধানতা এবং নিয়মিত বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকের পরামর্শ গ্রহণ করলে সুস্থ, স্বাভাবিক জীবনযাপন সম্ভব।

ডা. বশির আহমেদ তুষার

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s