ফেসবুকের ব্যবহার ও প্রয়োজনীয় কিছু টিপস

 সোস্যাল নেটওয়ার্কিং বা সামাজিক যোগাযোগের জন্য অন্যতম জনপ্রিয় ওয়েবসাইট হচ্ছে ফেসবুক। বর্তমানে এর জনপ্রিয়তা এতই বেশি যে সোস্যাল নেটওয়ার্কিং ওয়েবসাইটের মধ্যে ফেসবুক রয়েছে নম্বর অবস্থানে। ফেসবুক সম্পর্কে সবাই কমবেশি অবগত রয়েছেন। স্কুলকলেজের ছাত্রছাত্রী থেকে শুরু করে বৃদ্ধবৃদ্ধাদের অনেকেই ফেসবুকের সাথে জড়িত। বর্তমানে ব্যবহারকারীর সংখ্যা এতটা বেড়ে যাওয়ার কারণ কমপিউটার, ল্যাপটপের পাশাপাশি মোবাইলেও ফেসবুকের ব্যবহার চলছে। শহরের পাশাপাশি গ্রামগঞ্জের বিভিন্ন অঞ্চলেও এর ব্যবহার দেখা যাচ্ছে। তবে অনেকেই ফেসবুকের ব্যবহার সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা রাখেন না। তাদের জন্য ফেসবুকের বিভিন্ন বিষয়ের ওপর আলোচনা করা হয়েছে।

 ফেসবুকেরেজিস্ট্রেশন :

 ফেসবুক ব্যবহারের জন্য প্রয়োজন হবে একটি অ্যাকাউন্ট, যা দিয়ে ফেসবুকে লগইন করবেন। ফেসবুকে রেজিস্ট্রেশনের জন্য প্রথমে ওয়েব ব্রাউজার খুলে http://www.facebook.com- ভিজিট করুন। এতে আপনার সামনে ফেসবুকের প্রথম পেজটি প্রদর্শিত হবে। এখানে দুটি অপশন দেখতে পাবেন। ০১. লগইন ফর্ম (যদি ফেসবুকে লগইন করার জন্য ইউজারনেম আইডি আগে তৈরি করা থাকে তাহলে তা দিয়ে লগইন করতে পারবেন), ০২. সাইনআপ ফর্ম (যা দিয়ে আপনি ফেসবুকে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন)

 আগে যদি সাইনআপ না করে থাকেন তাহলে প্রথমে আপনাকে সাইনআপ করতে হবে। সাইনআপ করার জন্য প্রয়োজন হবে একটি মেইল অ্যাড্রেস, যা আপনার ফেসবুকে লগইন করার জন্য ইউজার আইডি হিসেবে ব্যবহার হবে। বিভিন্ন ধরনের ফেসবুকের নোটিফিকেশন এই অ্যাড্রেসে পাঠাবে। তাই ভালো অ্যাক্টিভ কোনো মেইল অ্যাড্রেস ব্যবহার করুন। যেমনজিমেইল, ইয়াহু, হটমেইল ইত্যাদি। সাইনআপ করার সময় First Name, Last Name, Your Email, Re-enter Email, New Password, Sex, Birthday তথ্যগুলো দিতে হবে। এই তথ্যগুলো দেয়ার পর Sign Up-এর সবুজ বাটনে ক্লিক করলে আপনার মেইল অ্যাড্রেসে একটি অ্যাক্টিভেশন লিঙ্ক পাঠাবে। আপনার মেইলে লগইন করে উক্ত লিঙ্কে ক্লিক করে ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি অ্যাক্টিভেট করে নিন।

 ফেসবুকেলগইনপ্রোফাইলসাজানো :

 ফেসবুকে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে গেলে আপনার মেইল অ্যাড্রেস পাসওয়ার্ড দিয়ে http://www.facebook.com পেজ থেকে লগইন করুন। নতুন ফেসবুক ব্যবহারকারীকে প্রথমে ফেসবুকের প্রোফাইল সাজিয়ে নিতে হয়। এখানে তিনটি ধাপ অনুসরণ করতে হয়। যথা– Find Friends, Profile Information, Profile Picture এই তথ্যগুলো দিয়ে আপনি Save & Continue বাটনে ক্লিক করুন। অথবা পরবর্তী কাজগুলো করার জন্য Skip লিঙ্কে ক্লিক করুন। ফেসবুকে প্রথম লগইন করে কাজগুলো করে নিতে পারেন অথবা পরেও কাজগুলো করতে পারেন, এর জন্য কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।

 ফেসবুকঅ্যাকাউন্টপ্রাইভেসি :

 ফেসবুক ব্যবহারকারীদের জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রাইভেসি অপশন রয়েছে। ফেসবুক ব্যবহারকারী তার প্রয়োজনে এসব প্রাইভেসি যুক্ত করতে পারেন বা কাস্টম প্রাইভেসি যুক্ত করতে পারেন। ফেসবুকের অ্যাকাউন্টে প্রাইভেসি সেট করার জন্য ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লগইন করুন। এখানে উপরের ডান পাশে অবস্থিত Account>Privacy Settings- ক্লিক করুন। এখানে Sharing on Facebook>Recommended- দেখুন Customize Settings নামে একটি অপশন রয়েছে, এখানে ক্লিক করুন। কাস্টোমাইজ সেটিংস থেকে বিভিন্ন অপশনের জন্য প্রাইভেসি সেট করে দিতে পারেন। যেমন– Post by me, Family, Relationships, Interested in, Bio and Favorite quotations, website, Religious and political views, Birthday, Place you check in to, Photos and videos you’re tagged in, Permission to comment on your posts, Suggest photos of me to friends, Friend can post on my Wall, Can see Wall posts by friends, Address, IM Screen name ইত্যাদি অপশনে প্রাইভেসি সেট করে দিতে পারেন।প্রাইভেসি সেট করার ক্ষেত্রে চার ধরনের অপশন দেখতে পাবেন। যথা– Everyone, Friends of Friends, Friend Only, Customize

 ফেসবুকেরজন্যইউজারআইডি :

 ফেসবুকের নিজের প্রোফাইল আইডিটি সহজে পাওয়ার জন্য বা অন্যের কাছে নিজেকে সহজে পরিচিত করার জন্য ফেসবুকে ইউজার নেম নিতে পারেন, যার ইউআরএল হবে http://www.facebook.com/username এই কাজটি করার জন্য Accounts>Account Settings- ক্লিক করুন। এখানে দেখুন Name-এর নিচে Username নামে একটি অপশন রয়েছে এবং এর ডান পাশে Change নামে একটি লিঙ্ক রয়েছে, এখানে ক্লিক করুন। এতে আপনার কাছে একটি ইউজারনেম চাওয়া হবে। আপনার পছন্দের ইউজার নেমটি দিয়ে Check Availability বাটনে ক্লিক করুন। নাম যদি ফ্রি থাকে তাহলে Confirm বাটনে ক্লিক করে নামটি সেভ করে নিন।  মনে রাখবেন ইউজারনেমটি অবশ্যই ইউনিক হতে হবে। আগে কেউ এই নামটি নিয়ে থাকলে তা নিতে পারবেন না, সেক্ষেত্রে নামটি পরিবর্তন করে দিতে হবে।

 ফেসবুকেফ্রেন্ডলিস্টলুকানো :

 ফেসবুকে ইচ্ছে করলেই অনেক কিছু করা যায়। যেমনআপনার ফ্রেন্ডলিস্ট লুকাতে এবং তা আবার দেখাতেও পারবেন। সাধারণত ফ্রেন্ডলিস্ট দেখানো থাকে। ইচ্ছে করলে আপনার ফ্রেন্ডলিস্ট সহজেই লুকাতে পারবেন। এর জন্য Accounts>Privacy Settings- ক্লিক করুন। এখানে দেখুন Choose your privacy Settings-এর নিচে Connecting on Facebook নামে একটি অপশন রয়েছে। এখানে View Settings এর লিঙ্কে ক্লিক করুন। এখানে বেশ কিছু অপশন রয়েছে। এর মধ্যে See your friend list-এর ডান পাশে থাকা বাটনে ক্লিক করুন। এখানে Custom সিলেক্ট করুন। কাস্টম অংশ থেকে Only Me সিলেক্ট করে দিন। এর ফলে আপনি ছাড়া আপনার ফ্রেন্ড বা অন্য কেউ আপনার ফ্রেন্ডলিস্ট দেখতে পাবে না।

 সার্চলিস্টেনিজেকেলুকানো :

 অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারী রয়েছেন যারা নিজেদেরকে শুধু ফ্রেন্ড পরিচিত জনের সাথে যুক্ত করতে চান। সেই সাথে চান অন্য কেউ যেনো তাদের খুঁজে না পায় সে ব্যবস্থা রাখতে। এই ধরনের প্রাইভেসি সেট করার জন্য Accounts>Privacy Settings- ক্লিক করুন। এখানে Choose your privacy Settings-এর নিচে Connecting on Facebook নামে একটি অপশন রয়েছে। এখানে View Settings-এর লিঙ্কে ক্লিক করুন। এখানে দেখুন Search for you on Facebook নামে একটি অপশন রয়েছে। এখানে ডান পাশের অপশন থেকে Friends Onlyতে ক্লিক করুন। অনেক ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের ঝামেলার হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য বিভিন্ন ফেসবুক ব্যবহারকারী এই অপশনটি ব্যবহার করে থাকেন।

 কাস্টমসেটিংসসম্পর্কেধারণা :

 প্রাইভেসি সেটিংস থেকে কাস্টম সেটিংসে ক্লিক করলে একটি উইন্ডো প্রদর্শিত হবে। এখানে Make this visible to-এর These People অংশ থেকে চারটি অপশনের যেকোনো একটি অপশন সিলেক্ট করে দিতে হবে : Friends of Friends, Friends Only, Specific People, Only Me স্পেসিফিক কোনো ইউজারের জন্য কাস্টম সেটিংসটির প্রয়োজন হয়ে থাকলে কাস্টম প্রাইভেসি উইন্ডোর Hide this from-এর These people-এর ঘরে উল্লিখিত ব্যক্তি বা ইউজারের নাম সেট করে দিতে পারেন। এতে সবার জন্য সব উন্মুক্ত থাকলেও উক্ত ব্যক্তির জন্য তা হিডেন থাকবে।  এখানে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের জন্য প্রয়োজনীয় বেশ কিছু বিষয় তুলে ধরা হলো। পরে ফেসবুকের ওপর আরো বেশ কিছু বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

 সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং বা সামাজিক যোগাযোগের জন্য ফেসবুকের জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়ে চলেছে। বর্তমানে ফেসবুকের সাথে পাল্লা দেয়ার জন্য গুগলও সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট চালু করেছে, যা গুগল প্লাস নামে পরিচিতি লাভ করেছে। গুগল প্লাস নতুন হিসেবে চমক দেখাচ্ছে বটে, কিন্তু বর্তমানে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ের ক্ষেত্রে ব্যবহারকারীরা ফেসবুকেই বেশি সময় কাটাচ্ছেন। কারণ ফেসবুকের রয়েছে প্রচুর ফিচার, যা ব্যবহারকারীকে ফেসবুকের দিকেই বেশি টানছে। ২০০৪ সাল থেকে শুরু করা ফেসবুক এখন এতটাই পরিণত যেকেউ ফেসবুকে সহজেই রেজিস্ট্রেশন করে ব্যবহার করতে পারছেন। এর বয়স বছরের বেশি হলেও অনেকেই ফেসবুক সম্পর্কে অনভিজ্ঞ। ফেসবুকের পরিচিতি তুলে ধরার জন্য গত সংখ্যায় ফেসবুকের বিভিন্ন ফিচার নিয়ে আলোচনা করা হয়েছিল। সংখ্যায়ও ফেসবুকের আরো কিছু ফিচার যেমনঅ্যাকাউন্ট সেটিংস, লিঙ্কড অ্যাকাউন্টের সাহায্যে মেইলের সাথে ফেসবুকের যোগসূত্র স্থাপন, ফেসবুকে আপনার পার্সোনাল ডাটা আর্কাইভ করে ব্যাকআপ করার পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে, যা একজন নতুন/পুরনো ব্যবহারকারীকে ফেসবুক ব্যবহার সম্পর্কে আরো বেশি আগ্রহী করে তুলবে।

 অ্যাকাউন্টসেটিংস :

 ফেসবুকের অ্যাকাউন্ট প্রাইভেসির পাশাপাশি ফেসবুকের অ্যাকাউন্ট সেটিংসও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কারণ অ্যাকাউন্ট সেটিংস থেকে একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী তার বিভিন্ন তথ্য পরিবর্তন করতে পারবেন। যেমনইউজার নেম, মেইল অ্যাড্রেস, পাসওয়ার্ড, নেটওয়ার্কস, লিঙ্কড অ্যাকাউন্টস, ল্যাঙ্গুয়েজ ইত্যাদি।

 লিঙ্কডঅ্যাকাউন্টস :

 লিঙ্কড অ্যাকাউন্টস ফেসবুকের একটি অসাধারণ ফিচার। এই অপশনের মাধ্যমে ওপেন আইডির সাহায্যে ফেসবুকের সাথে আপনার মেইল অ্যাকাউন্টের যোগসূত্র তৈরি করতে পারবেন। অর্থাৎ যে মেইল অ্যাকাউন্টের সাহায্যে ফেসবুকের অ্যাকাউন্ট তৈরি করেছেন, সেই অ্যাকাউন্টটি এখানে যুক্ত করে দিয়ে মেইল অ্যাকাউন্টে লগইন করতে যদি http://www.facebook.com ব্রাউজারে টাইপ করে এন্টার প্রেস করেন, তাহলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফেসবুকে লগইন হয়ে যাবে। এর জন্য নতুন করে ইউজার নেম পাসওয়ার্ড দিয়ে ফেসবুকে লগইন করতে হবে না। এই ফিচারটির জন্য অন্য মেইল অ্যাকাউন্টও এখানে যুক্ত করতে পারেন। এই ফিচারটি সহজেই চালু করতে পারবেন নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করে :

 ধাপ :

আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লগইন করে ওপরের ডান পাশের Account থেকে Account Settings- ক্লিক করুন।

 ধাপ :

এখানে Linked Accounts নামের অপশনের ডান পাশে Edit নামে একটি লিঙ্ক রয়েছে, এই লিঙ্কে ক্লিক করুন। ফলে আপনার সামনে একটি ছোট উইন্ডো প্রদর্শিত হবে।

 ধাপ :

ছোট উইন্ডোতে দেখুন লেখা আছে ‘If you are logged into one of the accounts below you will automatically be logged into Facebook.’ অর্থাৎ এই লেখার নিচের দিকে ড্রপডাউনে কিছু মেইল সার্ভিস প্রোভাইডারের নাম রয়েছে (যেমন– Google, MySpace, Yahoo!, MyOPenID, Verisign PIP, OpenID… ইত্যাদি) ওই নাম অনুযায়ী আপনার মেইল অ্যাকাউন্ট দিয়ে যদি লিঙ্কড অ্যাকাউন্ট তৈরি করেন, তাহলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফেসবুকে লগইন হয়ে যাবেন। এখন যে ড্রপডাউন লিস্ট রয়েছে তাতে মেইল অ্যাকাউন্ট সার্ভিসের নাম সিলেক্ট করে দিন। ধরুন, এখানে Google সিলেক্ট করা হয়েছে। এখন Link New Account নামে যে বাটন রয়েছে তার ওপর ক্লিক করলে একটি উইন্ডো প্রদর্শিত হবে

 ধাপ :

এখানে আপনার ফেসবুকের পাসওয়ার্ডটি টাইপ করে Confirm বাটনে ক্লিক করুন। এতে Click ‘Continue’ to link your OpenID account দিয়ে একটি মেসেজ প্রদর্শিত হবে। এখানে Continue বাটনে ক্লিক করুন।

 ধাপ :

ধাপ অনুসরণ করার পর আপনার সামনে আরেকটি উইন্ডো প্রদর্শিত হবে, যেখানে মেইল অ্যাড্রেসের ইউজার নেম পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে বলবে। মেইলের ইউজার নেম পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করার পর আপনার মেইল অ্যাকাউন্টে একটি কনফার্মেশন মেসেজ যাবে।

 ধাপ :

এবার ফেসবুক মেইল অ্যাকাউন্ট থেকে লগআউট করুন। এবার মেইল অ্যাকাউন্টে লগইন করুন এবং অন্য একটি ট্যাব খুলে http://www.facebook.com টাইপ করুন। এতে দেখতে পাবেন ফেসবুকের আইডি পাসওয়ার্ড না দেয়ার পরও ফেসবুকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে লগইন হয়ে গেছে। ফেসবুক অ্যাকাউন্টের তথ্য ডাউনলোড/ব্যাকআপ করা : ফেসবুকের এটিও একটি অন্যতম ফিচার, যা ব্যবহার করে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টের ডাটা ব্যাকআপ বা ডাউনলোড করে রাখতে পারবেন।

 এই কাজটি করার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

 ধাপ :

ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লগইন করে ওপরের ডান পাশের Account থেকে Account Settings- ক্লিক করুন।

 ধাপ :

একেবারে নিচের দিকে Download a copy of your Facebook data নামে একটি লিঙ্ক রয়েছে। এখানে Download a copy লিঙ্কে ক্লিক করুন। ফলে আপনার সামনে Download Your Information, Get a copy of what you’ve shared on Facebook মেসেজ দিয়ে একটি উইন্ডো প্রদর্শিত হবে।

 ধাপ :

এখানে Start My Archive নামে একটি লিঙ্ক রয়েছে। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন। এতে Request My Download নামে আরো একটি উইন্ডো প্রদর্শিত হবে। এখানে Start My Archive- ক্লিক করলে You will receive an email when your archive is ready for download মেসেজ দেবে। এখানে Okay বাটনে ক্লিক করুন।

 ধাপ :

Download Your Information, Get a copy of what you’ve shared on Facebook উইন্ডোতে We’re generating your personal archive. We’ll email you when it’s ready দিয়ে একটি মেসেজ প্রদর্শন করবে। অর্থাৎ যখন আপনার অ্যাকাউন্টে পার্সোনাল ডাটাগুলোকে আর্কাইভ করতে সক্ষম হবে, তখন ফেসবুক ওই সব ডাটার আর্কাইভ আপনার মেইল অ্যাকাউন্টে মেইল করে পাঠিয়ে দেবে। ডাটাগুলো আর্কাইভ করা হয়ে গেলে কিছু সময় পর আপনার মেইল অ্যাকাউন্টে Your download is ready মেসেজ দিয়ে একটি মেইল পাঠাবে ফেসবুক। ওখানে দেয়া লিঙ্ক থেকে আপনার আর্কাইভ করা ডাটা ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

 সতর্কতা :

 ফেসবুক ডাটা আর্কাইভ করার ক্ষেত্রে নিচের দিকে একটি সতর্কতা মেসেজ দেখতে পাবেন, যেখানে লেখা থাকবে ‘Your Facebook archive includes sensitive info like your private wall posts, photos and profile information. Please keep this in mind before storing, sending or uploading your archive to any other site or service.’ আপনার ফেসবুকের তথ্য নিরাপদ রাখার ক্ষেত্রে সতর্কতা আপনাকে অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

আশা করি, ওপরের আলোচনা হতে উক্ত সার্ভিসসমূহ ব্যবহার করতে পারবেন। যদি কারো সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে www. serversolution4u.com সাইটে ভিজিট করে ধাপগুলো দেখে নিন অথবা মেইল করুন।

 

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s