সবকাজেমুক্তসফটওয়্যার

দুনিয়াজুড়ে মুক্ত সফটওয়্যার এখন বেশ জনপ্রিয়। বাংলাদেশেও বেড়েছে এর ব্যবহার। ইন্টারনেট সংযোগদাতা ও নেটওয়ার্কিং প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বর্তমানে সাধারণ ব্যবহারকারীদের মধ্যেও বেড়েছে মুক্ত সফটওয়্যার ব্যবহার। একটা সময় ছিলমুক্ত সফটওয়্যার শুধু কম্পিউটার পেশাজীবী বা কম্পিউটার বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীরা ব্যবহার করতেন।কিন্তু এখন সাধারণ ব্যবহারকারিদের কাজে লাগে এমন অনেক মুক্ত সফটওয়্যার পাওয়া যায়। তাই এর জনপ্রিয়তা বাড়ছেই।কম্পিউটারে বাংলাচর্চার ক্ষেত্রেও এগিয়ে আছে মুক্ত সফটওয়্যার।
মূলত প্রোগ্রামিং সংকেত লিখেলিখেসফটওয়্যার তৈরি হয়। এই সংকেত অন্যের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত থাকে মুক্ত সফটওয়্যারে। ফলে যেকোনো সফটওয়্যারকে নিজের মতো করে সাজিয়ে নেওয়া যায়। ১৯৫০ সালের দিকে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস মেশিনস (আইবিএম) করপোরেশন তাদের অপারেটিং সিস্টেম ও অন্যান্য সফটওয়্যারের প্রোগ্রামিং সংকেত সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়। নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে ফ্রি সফটওয়্যার থেকে মুক্ত (ওপেন সোর্স) সফটওয়্যার কথার প্রচলন শুরু হয়। ফ্রি বললে সেটি অনেক সময়ই বিনা মূল্যে পাওয়া যাবে বলে মনে হয়, যদিও ‘ফ্রি’ এসেছে ইংরেজি ফ্রিডম থেকে।

নানা ধরনের মুক্ত সফটওয়্যার

শুধু সফটওয়্যার ব্যবহারেই নয়, নানা কাজে বর্তমানে মুক্ত দর্শনের প্রচলন আছে। পাশাপাশি এখন বাসা, অফিস বা সাধারণ কাজে ব্যবহারের জন্যও মুক্ত সফটওয়্যার বেশ জনপ্রিয়।

উবুন্টু

বর্তমান সময়ে বেশ জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম (ওএস) হচ্ছে উবুন্টু। মুক্ত অপারেটিং সিস্টেম লিনাক্সের জনপ্রিয় ডিস্ট্রো উবুন্টুর পাশাপাশি রয়েছে এডুবুন্টু, গবুন্টু, কুবুন্টু, লুবুন্টু, উবুন্টু মোবাইল (মোবাইল ফোন সংস্করণ) ইত্যাদি। উবুন্টু ডেস্কটপ কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য তৈরি করা হলেও এর রয়েছে নেটবুক ও সার্ভার সংস্করণ। বিশ্বে প্রায় এক কোটি ২০ লাখেরও বেশি সাধারণ ব্যবহারকারী বর্তমানে উবুন্টু ব্যবহার করছেন। উবুন্টু হচ্ছে আধুনিক একটি অপারেটিং সিস্টেম, যাতে উইন্ডোজ বা ম্যাক ওএসের সবকিছুই রয়েছে। এটি সবকিছুকে সহজভাবে উপস্থাপন করে এবং আধুনিকতম সুবিধা দেয়। এ অপারেটিং সিস্টেমে সংযুক্ত রয়েছে ওয়েবসাইট দেখার জনপ্রিয় সফটওয়্যার মজিলা ফায়ারফক্স, তাৎক্ষণিক বার্তা আদান-প্রদানের (চ্যাট) জন্য পিজিন মেসেঞ্জার, যা ইয়াহু, গুগলটক, এআইএম, এমএসএনের মতো প্রায় সব সার্ভার সমর্থন করে। লেখালেখি করা, হিসাবনিকাশ, উপস্থাপনা তৈরির জন্য রয়েছে ওপেন অফিস ডট অর্গ নামের সফটওয়্যার, ছবি সম্পাদনার জন্য রয়েছে জিআইএমপি সফটওয়্যার, গান শোনা ও ভিডিও গান দেখার জন্য রয়েছে রিদমবক্স, ভিএলসি প্লেয়ার ইত্যাদি। এসব প্রোগ্রাম উবুন্টুর সাধারণ ইনস্টলেশনের সঙ্গেই বিনা মূল্যে পাওয়া যায়। পাশাপাশি রয়েছে কোনো সফটওয়্যার প্রয়োজন হলে সেটি ইনস্টল করার ব্যবস্থা। উবুন্টুর হার্ডওয়্যার সমর্থন চমৎকার। প্রাত্যহিক জীবনের সাউন্ডকার্ড, গ্রাফিক্স কার্ড, প্রিন্টার, ওয়্যারলেস, ক্যামেরা, ইউএসবি ড্রাইভ, আই-পডসহ প্রায় সব যন্ত্র সমর্থন করে উবুন্টু।
উবুন্টুর সর্বশেষ সংস্করণ ১১.১০। বর্তমানে ৫৫টিরও বেশি ভাষায় সংস্করণগুলো পাওয়া যাচ্ছে। প্রায় সব লিনাক্সের সংস্করণের মতো উবুন্টুও বিনা মূল্যে পাওয়া যায়। উবুন্টু সম্পর্কে বিস্তারিত জানা ও নামানো যাবে http://www.ubuntu.com ঠিকানা থেকে।

ওপেন অফিস ডট অর্গ

ওপেন অফিস ডট অর্গ মুক্ত সফটওয়্যারগুলোর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয়। মাইক্রোসফট অফিসের সমকক্ষ এই সফটওয়্যার দিয়ে লেখালেখি, হিসাব-নিকাশ, উপস্থাপনা, গ্রাফিক্সসহ সব কাজ করা যায়। ওপেন অফিস ডট অর্গ বিশ্বের বেশির ভাগ ভাষায় এবং সব ধরনের অপারেটিং সিস্টেমে কাজ করে। বিভিন্ন ভাষার পাশাপাশি ওপেন অফিস বাংলা ভাষায়ও পাওয়া যায় এবং আছে বাংলা বানান পরীক্ষকও। এটি http://sourceforge.net/projects/bengalinux/files/bengali-spellcheck/bn_BD-0.06.oxt/download ওয়েবসাইট থেকে বিনা মূল্যে নামিয়ে ব্যবহার করা যাবে।
ওপেন অফিস থেকে সরাসরি পিডিএফ ফরম্যাটে ফাইল সংরক্ষণ করা যায়। ওপেন অফিস ইংরেজি ও বাংলা সংস্করণ নামানো যাবে http://www.openoffice.org/download/other.html ঠিকানা থেকে। উইন্ডোজ, লিনাক্সসহ অন্যান্য সব অপারেটিং সিস্টেমে এটি কাজ করবে।

জিম্প

জিএনইউ ইমেইজ ম্যানিপুলেশন প্রোগ্রাম (জিম্প) বিভিন্ন ছবি সম্পাদনার জন্য দারুণ একটি মুক্ত সফটওয়্যার। অনেকে একে গিম্প নামেও চেনেন। ফটোশপের সমতুল্য এই সফটওয়্যারটি দিয়ে ছবি আঁকা, লোগো বানানো, আকার পরিবর্তন, ক্রপ, ছবি একসঙ্গে মেলানো, ছবির ধরন পরিবর্তন ইত্যাদি কাজ ছাড়াও ছোটখাটো অ্যানিমেটিড ইমেইজ জিপ ফরম্যাটে সহজেই করা যায়। জিম্পের ইন্টারফেস বা সফটওয়্যারের অবয়বটিকে নিজের মতো করে তৈরি করা যায়। এমনকি উইজেটের আকার, থিমের সঙ্গে সঙ্গে টুলবক্সের বিভিন্ন আইকনের চেহারা পরিবর্তন করা সম্ভব। ওপেনসোর্স অপারেটিং সিস্টেম লিনাক্সের সঙ্গে ছবি সম্পাদনার সফটওয়্যার হিসেবে এটি দেওয়া থাকে। এ ছাড়া উইন্ডোজের এক্সপি, ভিসতা, ম্যাক, সান ওপেন সোলারিসের জন্য রয়েছে এর আলাদা সংস্করণ। সবগুলোই বিনা মূল্যে নামানো যাবে। গিম্প পাওয়া যাবে http://www.gimp.org ঠিকানায়।

ফায়ারফক্স

মজিলা ফায়ারফক্স ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে একটি অতি পরিচিত নাম। ওয়েবসাইট দেখার জনপ্রিয় এই সফটওয়্যারের (ব্রাউজার) ব্যবহারকারী প্রায় ৪০ কোটি।মজিলা ফায়ারফক্স ব্রাউজারটি বর্তমানে একই উইন্ডোতে একাধিক ট্যাব খুলে ব্রাউজিং, বানান পরীক্ষা, ডাউনলোড, প্রাইভেট ব্রাউজিং, ইন্টিগ্রেটেড সার্চ অপশন ইত্যাদি সুবিধা পাওয়া যায়। সব ভাষাভাষীর সুবিধার জন্য ফায়ারফক্সের সর্বশেষ সংস্করণটি ৮৬টি ভাষায় পাওয়া যাবে http://www.mozilla.com/en-US/firefox/all.html#languages ঠিকানার ওয়েবসাইটে। এ সাইট থেকে বাংলায়ও পাওয়া যাবে ফায়ারফক্স। লিনাক্স ছাড়াও উইন্ডোজ, ম্যাকের জন্যও রয়েছে এর আলাদা সংস্করণ।

ভিএলসি

ভিএলসি একটি মুক্ত মিডিয়া প্লেয়ার এবং মাল্টিমিডিয়া ফ্রেমওয়ার্ক। এটি পোর্টেবল মিডিয়া প্লেয়ার হিসাবেও ব্যবহার করা যায়। ডিভিডি, ভিসিডি বিভিন্ন স্ট্রিমিং মিডিয়াসহ প্রায় সব অডিও এবং ভিডিও ফাইল ফরম্যাট সমর্থন করে। এ ছাড়া নেটওয়ার্কে স্ট্রিমিং এবং মিডিয়া ফাইলের ফরম্যাট পরিবর্তন করার কাজটি করা যায় এই সফটওয়্যার ব্যবহার করে। মাইক্রোসফট উইন্ডেজ, ম্যাক, লিনাক্স, বিএসডি, সোলারিস, আইওএসসহ প্রচলিত প্রায় সব ওএস-উপযোগী সংস্করণ পাওয়া যায়। ভিলসি নামানো যাবে http://www.videolan.org ঠিকানা থেকে।

পিজিন

প্রতিনিয়ত নানা কাজে প্রয়োজন হয় তাৎক্ষণিক বার্তা আদান-প্রদানের (চ্যাট) সুবিধা। এসব ক্ষেত্রে প্রায় বিনা মূল্যে ই-মেইল সেবা প্রদানকারী প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের আলাদা মেসেঞ্জার ব্যবহারের সুযোগ দেয়। তবে একসঙ্গে ভিন্ন ভিন্ন মেসেঞ্জার ব্যবহার করতে গেলে প্রয়োজন হয় একটি মেসেঞ্জার, যেখানে সবগুলো আইডি ব্যবহার করে চ্যাট করা যায়। এ ক্ষেত্রে জনপ্রিয় মুক্ত সফটওয়্যার পিজিন বেশ জনপ্রিয়। এই মেসেঞ্জারে ইয়াহু, গুগলটক, জিমেইল, হটমেইল, এআইএম, ফেসবুক ইত্যাদির চ্যাট একসঙ্গেই করা সম্ভব। সফটওয়্যারটির আলাদা উইন্ডোজ, ম্যাকের জন্য আলাদা সংস্করণও রয়েছে। সফটওয়্যারটি নামানো যাবে http://www.pidgin.im/download ঠিকানা থেকে।

থান্ডারবার্ড

মজিলা থান্ডারবার্ড মজিলা ফাউন্ডেশনের তৈরি করা একটি ডেস্কটপ ই-মেইল সফটওয়্যার; যার মাধ্যমে পপ, আইম্যাপসহ সব ধরনের ই-মেইল এবং একাধিক ই-মেইল অ্যাকাউন্টের ই-মেইল সংগ্রহ, ব্যবস্থাপনা এবং ই-মেইল পাঠানোও যায়। লিনাক্স ছাড়াও উইন্ডোজ, ম্যাক, ওপেন সোলারিসসহ বিভিন্ন ওএস-এ ব্যবহার করা যায়। সফটওয়্যারটির বাংলা ও ইংরেজি সংস্করণ নামানো যাবে http://www.mozilla.org/en-US/thunderbird/all.html ঠিকানা থেকে।

পেতে পারেন সহায়তাও

মুক্ত সফটওয়্যার ব্যবহারের ক্ষেত্রে নানা সমস্যায় পড়লে পেতে পারেন সহায়তা। মুক্ত সফটওয়্যার নিয়ে কাজ করা বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের (বিডিওএসএন) support@bdosn.org ঠিকানায় ই-মেইল করে পাওয়া যাবে সহায়তা। নিজের ভাষা নিজের দেশের উপযোগী কাজের জন্য মুক্ত সফটওয়্যার সবচেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য। তাই এর প্রসার বাড়ুক, এটাই প্রত্যাশা।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s