Get help when you are in Hajj

এবার হজে যাবেন কুমিল্লার মুখলেসুর রহমান। প্রাথমিক নিবন্ধন-প্রক্রিয়া শেষ। কিন্তু বাকি প্রক্রিয়া কিভাবে সম্পন্ন করবেন, ফ্লাইট কবে, সৌদি গিয়ে কোথায় থাকবেন_এসব কিছুই জানেন না। এ ছাড়া সৌদি আরবে গিয়ে পরিচিতদের সঙ্গে কিভাবে যোগাযোগ রাখবেন_এ ব্যাপারেও স্বচ্ছ ধারণা নেই তাঁর। এত সব দুশ্চিন্তার অবসান হলো আরেক হজযাত্রী গাজীপুরের আবুল হাশেমের কথা শুনে। তিনি গত বছর বেসরকারি হজ এজেন্টের মাধ্যমে সফলভাবে হজ করে দেশে ফিরেছেন। জানালেন, মোবাইলে রোমিং সুবিধা থাকায় সে দেশে গিয়েও বাংলাদেশের আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা যায়। বিশেষ ‘হজকার্ড’ দিয়ে সৌদি মুদ্র্রা সংগ্রহ করা যায়। এ ছাড়া হজের নির্দেশিকা, পুরো প্রক্রিয়ার তথ্য, এজেন্টদের তালিকা, খরচ, করণীয়, হজ পালনকালে হজযাত্রীর সর্বশেষ হালনাগাদ তথ্য ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় পরিচালিত হজ পোর্টাল (www.hajj.gov.bd) থেকেই জানা যাবে।

অনলাইনে হজ-প্রক্রিয়া
হজ-প্রক্রিয়ার প্রতিটি ধাপ সহজ, দ্রুত ও ঝামেলামুক্ত করতে সরকার প্রযুক্তিনির্ভর ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি চালু করেছে। শুরুতে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় ওয়েবসাইট ও পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে হজে যেতে ইচ্ছুকদের নিবন্ধনের দিন-তারিখ ও নির্দেশিকাসংবলিত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।
২০১২ সালে অনুষ্ঠিতব্য হজে যেতে আগ্রহীদের জন্য ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিটি যুক্ত হয়েছে এ লিংকে-www.hajj.gov.bd/en/newsandevents/ 1487-attention-to-pilgrims.html। অনলাইনে আবেদন ফরম ও নাম নিবন্ধন প্রক্রিয়ার বিস্তারিত উল্লেখ থাকে। সরকারের ঘোষিত নির্দিষ্ট সময়ের পর অনলাইনে নাম অন্তর্ভুক্তি স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যায়। এ বছর নাম নিবন্ধনের প্রক্রিয়া শেষ হয় ৭ জুলাই। এর পরের ধাপে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে গমনেচ্ছু ব্যক্তিদের সরকার কর্তৃক অনুমোদিত বৈধ হজ এজেন্টের মাধ্যমে হজ-প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে হবে। প্রতারণা এড়াতে বৈধ বা অনুমোদিত হজ এজেন্টদের তালিকাও পাবেন অনলাইনে। ভিসা-প্রক্রিয়ার কাজটি এজেন্টরাই করে দেয়। এজেন্টদের মাধ্যমে নিবন্ধিত হাজিদের অনলাইনে সেবা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করতে হয় ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কাছে। এ ছাড়া অভিজ্ঞ গাইডেরও দরকার আছে। গাইডরা সৌদি আরবে হজ পালনকালে সব প্রক্রিয়ায় হজযাত্রীদের সহযোগিতা করেন। এ বছরের হজে নির্ধারিত গাইডদের তালিকা সংগ্রহ করতে পারবেন এ লিংক থেকে-http://www.hajj.gov.bd/images/ stories/guide_list.doc। সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ করতে যাওয়া হজযাত্রীদের প্রতি ৪৫ জনের জন্য একজন গাইড দেওয়া হবে। তবে এর জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা মেনে আবেদন করতে হবে। বিস্তারিত তথ্য ওয়েবেই পাবেন।

কাজে আসবে যেসব সাইট
এবারের হজ ব্যবস্থাপনায় প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি দিয়ে সহায়তার জন্য তিনটি দল তৈরি করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। প্রতি দলে সদস্য ৩৫ জন। এদের সম্পর্কে জানতে খোঁজ নিন http://www.hajj.gov.bd/en/2012-07-12-12-37-38-/1643-2012-08-29-09-25-27 লিংকে।
ফ্লাইটের সূচি কিংবা ফ্লাইট জটিলতায় নির্ধারিত সময়ের ফ্লাইটটি বাতিল হলো কি না, এ তথ্যও পাবেন হজ পোর্টালের লিংক http://www.hajj.gov.bd/en/flight -এ। পাশাপাশি এ লিংকে হজযাত্রী সহায়তাকারী সেলের নম্বরে ফোন করেও সর্বশেষ তথ্য জানতে পারেন। হজের নিয়মকানুন, জিয়ারত ও হাজিদের জন্য জরুরি কিছু তথ্য দেওয়া আছে http://www.haab-bd.com এবং http://www.hajj.gov.bd/en/tips সাইট দুটিতে। আরো কিছু দরকারি তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন http://www.hajj.gov.bd/images/downloads/guideline^forhajj^guides.pdf থেকে। মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) কিভাবে হজ পালন করেছেন, এমন তথ্যও ছাড়াও হজবিষয়ক বিভিন্ন তথ্য পাবেন http://www.quraneralo.com/prophets-way-of-performing-hajj-1/সাইটটিতে। হজ এজেন্টদের জন্য জরুরি নির্দেশনা আছে http://www.hajj.gov.bd/images/downloads/MORA.PDF-এ।
হজ ডকুমেন্টারি দেখতে পাবেন http://hajinformation.com/main/v.htm লিংকে।
অনুমোদিত হজ এজেন্টদের তালিকা মিলবে- http://www.hajj.gov.bd/en/-agency-information-এ।

কাজ করছে ‘আইটি সেল’
http://www.hajj.gov.bd সাইটটি মন্ত্রণালয়, হজ অফিস, হজ মিশন বা এজেন্ট ও আগ্রহী হজযাত্রীদের মধ্যে দ্রুত তথ্য আদান-প্রদান ও সমন্বয়ের কাজটি করছে। এর পেছনে আছে একটি ‘আইটি সেল’, এ টিমের কাজ হচ্ছে তথ্যপ্রযুক্তি সেবা যুক্ত, সংরক্ষণ, হালনাগাদ ও নিয়ন্ত্রণ করা।
সৌদি হজ মন্ত্রণালয়ের চাহিদা অনুযায়ী হজযাত্রীদের তথ্য ডেটাবেইসে সংরক্ষণ করে অনলাইনে ‘ভিসা লজমেন্ট’ ও দরকারি তথ্য সৌদি দূতাবাসে পাঠানোর কাজটি করে এ সেল। তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান বিজনেস অটোমেশন লিমিটেড ‘বিওটি’ (বিল্ড অপারেট অ্যান্ড ট্রান্সফার) পদ্ধতিতে তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর হজ ব্যবস্থাপনার ধাপগুলো সম্পন্ন করে।
মন্ত্রণালয়ের সাইট থেকে জানা যায়, হজ চলাকালে তথ্যসেবা নিশ্চিত করতে এ সেলের হেল্প ডেস্ক থাকবে ঢাকা, মক্কা, মদিনা ও জেদ্দায়। ঢাকা হাজি ক্যাম্পে ডেটাবেইস, সার্ভার, স্ক্যানার, প্রিন্টার, উচ্চগতির ইন্টারনেট যুক্ত কম্পিউটারের মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা করে। মক্কা, মদিনা ও জেদ্দার হেল্প ডেস্কেও এসব প্রযুক্তি পণ্যের পাশাপাশি তৈরি করা হয়েছে ওয়েবনির্ভর বিশেষ ‘হজ ব্যবস্থাপনা সফটওয়্যার’। এ সফটওয়্যারের মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন গ্রহণ ও আবেদনের তথ্য সরবরাহ ও সংরক্ষণ করা হয়। ফলে সৌদি আরবের উদ্দেশে বাংলাদেশ ত্যাগের সময় বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ কম্পিউটারে বারকোড ও হজযাত্রীর ছবি যাচাই করে দেখতে পারবে। সব তথ্য ডেটাবেইসে যুক্ত থাকায় সরকারি ও বেসরকারি হজযাত্রীদের পরিচয়পত্র এবং ‘পারফোরেটেড শিট’ সহজ ও দ্রুত তৈরি করে এজেন্সিকে সরবরাহ করা যায় নির্ধারিত সময়েই।
‘আইটি সেল’ অনলাইনে সৌদি দূতাবাসের ‘ভিসা লজমেন্ট’, বারকোড ও আইডি যাচাই এবং এম্বারকেশন কার্ড প্রিন্টিংয়ের কাজ করে। অনুমোদিত হজ এজেন্টদের প্রশিক্ষণের কাজও করে এ সেল।
হজযাত্রীদের সর্বশেষ অবস্থা যেন তাদের স্বজনরা জানতে পারে, এর জন্য মোয়াল্লেম, সংশ্লিষ্ট এজেন্সি বা আবাসন এবং বিমানযাত্রার তারিখসহ আরো দরকারি তথ্য ওয়েবে প্রকাশ করে আইটি সেল। কোনো হজযাত্রীর মৃত্যু হলে তাৎক্ষণিক ওয়েবসাইটে যুক্ত করে সৌদি আরবে স্থাপন করে হেল্প ডেস্ক। একই সঙ্গে ঢাকা ও জেদ্দা বিমানবন্দরের হজযাত্রীদের আগমন ও প্রত্যাগমনের তথ্যও সংগ্রহ করে অনলাইনে প্রকাশ করা হয়। আত্মীয়স্বজনরা চাইলে হেল্প ডেস্কে ই-মেইল কিংবা ফোনেও জেনে নিতে পারেন হজযাত্রীর হালনাগাদ খবর।

নেই হারানোর ভয়
হজে গিয়ে হজযাত্রী নিখোঁজ হওয়ার আশঙ্কা আছে। যদি সত্যিই এমন হয়, তাহলে তাদের খোঁজ মিলবে হজ পোর্টালের (www.hajj.gov.bd)) ‘অ্যাডভান্স সার্চ’ অংশে। এর ফলে পরিচিতরাও তাঁদের কাঙ্ক্ষিত মানুষটির খোঁজ জেনে নিতে পারবেন সহজেই। ওয়েবটির ওপরে বাঁ দিকে ‘পিলগ্রিম সার্চ’ অংশের নিচে ‘অ্যাডভান্সড পিলগ্রিম সার্চ’-এ ক্লিক দিতে হবে। এরপর নাম, পিতা বা স্বামীর নাম, জেলা, উপজেলা, এজেন্ট এবং বয়সসহ ব্যবহার করে কাঙ্ক্ষিত ব্যক্তির সর্বশেষ অবস্থান জানা যাবে।

মুদ্রা মিলবে বিশেষ হজকার্ডে
সৌদি আরবে গিয়ে হজযাত্রীদের মুদ্রা (রিয়াল) হারানোর ভয় নেই। ব্র্যাক ব্যাংক হজযাত্রীদের জন্য বিশেষ প্রিপেইড ‘হজকার্ড’ সরবরাহ করছে। এ কার্ডের মাধ্যমে হজযাত্রীরা সৌদি আরবের ‘ভিসা’সংবলিত যেকোনো ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে টাকা তুলতে কিংবা কেনাকাটা করতে পারবেন। দেশে ফেরার পর অব্যবহৃত মুদ্রা টাকায় ওঠানোরও সুযোগ পাবেন এ কার্ডের গ্রাহকরা। এ কার্ড পেতে হলে পাসপোর্ট আকারের ছবি, পাসপোর্ট, ভিসার কপিসহ যোগাযোগ করতে হবে ব্যাংকের শাখায়। বিস্তারিত জানা যাবে ব্র্যাক ব্যাংকের ১৬২২১ নম্বরে কলসেন্টারে ফোন করে অথবা ই-মেইলও (enquiry@bracbank.com) করতে পারেন।

সেবা পাবেন মুঠোফোনেও
হজযাত্রীরা প্রয়োজনীয় অনেক সেবাই পাবেন এসএমএস ও অ্যাপ্লিকেশনে (Apps)। অ্যাপস পেতে আপনার মুঠোফোনের অ্যাপস অংশে গিয়ে HAJJ লিখে খোঁজ করুন। বাংলা-ইংরেজি বিভিন্ন ভাষার অ্যাপস থেকে আপনার দরকারিটি খুঁজে নিন। ওয়েবসাইট থেকেও অ্যাপস নামাতে পারেন। এমন একটি সাইট- http://download.cnet.com/mobile-downloads। এ সাইটের ‘সার্চ’ অংশে ‘HAJJ’ লিখে খোঁজ করুন।
হজযাত্রীরা প্রয়োজনীয় অনেক সেবাই পাবেন মুঠোফোনের এসএমএসে। শুধু কয়েকটি ডিজিট জানা থাকলেই হলো! হজবিষয়ক বিভিন্ন তথ্য, পরামর্শ, ফ্লাইটের সময়সূচি জানতে পারবেন এ দেশের মোবাইল সংযোগ থেকেই। হজের বিশেষ আয়োজন ও অন্যান্য ধর্মীয় সেবা দিচ্ছে মোবাইল অপারেটর রবি। ৮০৮০৭০ নম্বরে ডায়াল করলেই পাবেন এসব সেবা। আরো তথ্য জানা যাবে এ লিংক থেকে- http://www.robi.com.bd/bangla/index.php/page/view/377 ২২০০ নম্বরে ডায়াল করে পাবেন বিভিন্ন তথ্যসেবা। সৌদি আরবে আন্তর্জাতিক রোমিং সুবিধা থাকায় এ দেশে ব্যবহৃত নম্বরটিও সঙ্গে করে নিতে পারেন। বাংলালিংক গ্রাহকরাও আন্তর্জাতিক রোমিং সুবিধা পাবেন।
রবি ব্যবহারকারীরা ৮০৮০৭০ নম্বরে ডায়াল করে হজবিষয়ক বিভিন্ন তথ্যের পাশাপাশি বার্তাসেবাও পাবেন। সিটিসেল গ্রাহকরা ১৪১২ নম্বরে ডায়াল করে জেনে নিতে পারবেন হজবিষয়ক তথ্য। এয়ারটেল গ্রাহকরা রোমিংয়ের তথ্য পাবেন এ লিংকে- http://bd.airtel.com/ir.php।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s