সৃজনশীল পদ্ধতিতে যা জানা প্রয়োজন

সৃজনশীল প্রশ্নপদ্ধতিতে কোনো প্রশ্নের পুনরাবৃত্তি ঘটে না। সেহেতু দুতিন বছর আগের কোনো প্রশ্ন বা কোনো অভিজ্ঞ শিক্ষক বা কোনো কোচিং সেন্টারের কোনো সাজেশন থেকে কোনো প্রশ্ন কমন পড়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। কোনো প্রশ্ন কমনও পড়েনি। এই পদ্ধতিতে ফলাফল ভালো করার একমাত্র উপায় হচ্ছে সম্পূর্ণ পাঠ্যবইটিকে খুব ভালোভাবে আত্মস্থ করা। পাঠ্যবইটির ওপর তোমার যত বেশি দখল থাকবে তত তুমি ভালো করতে পারবে। কোনো গাইড বই বা আগে প্রস্তুতকৃত ভালো নোটসমূহের ওপর নির্ভর করে পরীক্ষা দিতে গেলে তুমি ভালো ফলাফল আশা করতে পারবে না। কেননা পরীক্ষার কক্ষে তোমাকে নিজ শব্দচয়ন বাক্য গঠন করে উত্তর দিতে হবে। আগে থেকে প্রস্তুতকৃত নোট থেকে উত্তর দেওয়ার কোনো সুযোগই নেই এই পদ্ধতিতে।
তোমরা জান সৃজনশীল প্রশ্নপদ্ধতির দুটি অংশবহুনির্বাচনী এবং ব্যাখ্যামূলক (যা সৃজনশীল প্রশ্ন হিসেবে পরিচিত) উভয় অংশেই শুধু মুখস্থ করে উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্র সীমিত। বহুনির্বাচনী এবং ব্যাখ্যামূলক বা সৃজনশীল অংশে কিছু প্রশ্ন থাকবে যা শিক্ষার্থী মুখস্থ করে উত্তর দিতে পারবে। যেমন ফটিকের মামার বাড়ি কোথায়? জাবেদার ছকে মোট কয়টি ঘর? কোনটি লব্ধ রাশি? পরিবার কয়টি ভাগে বিভক্ত?, অ্যামিবা কোন পর্বের প্রাণী? চাহিদার উপাদান কয়টি? ইত্যাদি।
কিছু প্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে তোমাকে শুধু তথ্য স্মরণ রাখলেই হবে না। সেই তথ্য বুঝে উত্তর দিতে হবে। যেমন: কৃষির আধুনিকীকরণের ক্ষেত্রে কোনটি বড় বাধা এবং কেন? দ্রুত ধাবমান গাড়ি হঠাত্ থামিয়ে দিলে শক্তির কোন প্রকারের রূপান্তর ঘটে? ব্যাখ্যা করো, আর্থিক লেনদেনগুলোকে শ্রেণিবিন্যাস করা হয় কেন?
কিছু প্রশ্ন থাকবে, যার মাধ্যমে তুমি পাঠ্যবইয়ের যে সুনির্দিষ্ট তত্ত্ব, ধারণা, সূত্র, সংজ্ঞা, নিয়মনীতি আত্মস্থ করেছ তা বাস্তব জীবনে কতটুকু প্রয়োগ করতে পার তা দেখা হবে। কিছু প্রশ্ন থাকবে যার মাধ্যমে পাঠ্যবইয়ের জানা তথ্য ব্যবহার করে নতুন কোনো পরিস্থিতিতে তোমার বিচার বিশ্লেষণ করার, সিদ্ধান্ত গ্রহণের এবং মূল্যায়নের দক্ষতাকে দেখা হবে।
বহুনির্বাচনী প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রে চারটি বিকল্প উত্তর (, , , ) থেকে একটি সঠিক উত্তর বেছে নিতে হয়। কিছু কিছু বহুনির্বাচনী প্রশ্নের শুরুতেই একটি দৃশ্যকল্প/উদ্দীপক (অপরিচিত পরিস্থিতি) থাকে যা তোমার পাঠ্যবইয়ের তথ্যের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা। প্রশ্নের শুরুতে যখনই কোনো দৃশ্যকল্প/উদ্দীপক থাকবে তোমাকে তখন বুঝতে হবে যে তোমার কাছ থেকে পাঠ্যবইয়ের কোনো সুনির্দিষ্ট তত্ত্ব, তথ্য, ধারণা, নিয়মনীতি, সূত্র ইত্যাদির প্রয়োগ চাওয়া হচ্ছে। অর্থাত্ তুমি পাঠ্যবইয়ের সেই সুনির্দিষ্ট বিষয়গুলো কোনো নতুন পরিস্থিতিতে প্রয়োগ করতে পারছ কিনা তা দেখা হবে। যেমন: a. Cu + HCl (লঘু) = বিক্রিয়া হয় না, কিন্তু b. 3Cu + 8HNO3 (লঘু) = 3Cu(NO3)2 + 4H2O + 2NO এখন তোমার কাছে (b) নং বিক্রিয়ার ধরনটি সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলো এবং চারটি উত্তর থাকল যথাক্রমে: . প্রতিস্থাপন, . অম্লক্ষার প্রশমন, . দ্বিবিযোজন, এবং . জারণবিজারণ। উপরিউক্ত চারটি বিক্রিয়ার যেকোনো একটি সুনির্দিষ্ট বিক্রিয়ার ধারণাটিকে উপরিউক্ত (b) নং বিক্রিয়ায় প্রতিফলিত করানো হয়েছে। এখন তুমি তোমার পাঠ্যবইয়ের বিক্রিয়ার ধরনগুলোর বৈশিষ্ট্যের আলোকে উদ্দীপকের (b) নং বিক্রিয়ার বৈশিষ্ট্য মেলাবে এবং উত্তর হিসেবে উপরিউক্ত উত্তরগুলোর মধ্য থেকে যেকোনো একটি সুনির্দিষ্ট বিক্রিয়ার ধারণাটিকে বেছে নিতে হবে। এখানে কপার নাইট্রোজেনের পরস্পরের ইলেক্ট্রনের আদানপ্রদানের জন্য (b) নং বিক্রিয়াটি জারণবিজারণ।
তোমার পঠিত অন্যান্য বিষয়ের বহুনির্বাচনী প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রেও এই রকম সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্যকে নতুন পরিস্থিতিকে দেখতে চাওয়া হবে। যেমন কুটিরশিল্প, স্থানীয় শাসনব্যবস্থা, অর্থনৈতিক কাজ, রাজপুতনীতি, মন্দন, কোনো সূত্রের প্রয়োগ, সালোক সংশ্লেষণ ইত্যাদি ধারণাগুলোর নতুন পরিস্থিতিতে প্রয়োগ করতে হবে। শিক্ষার্থীর লব্ধ জ্ঞানকে বাস্তব জীবনের নতুন পরিস্থিতিতে শুধু প্রয়োগ করার ক্ষমতাই দেখা হবে না, শিক্ষার্থী পাঠ্যবইয়ের তথ্যের ভিত্তিতে সেই নতুন পরিস্থিতি বিচারবিশ্লেষণ করতে পারছে কি না তা দেখা হবে। অর্থাত্ কিছু প্রশ্ন আছে যার উত্তর দিতে গেলে তোমাকে পাঠ্যবইয়ের তথ্যগুলো বুঝে বিচারবিশ্লেষণ করে উত্তর দিতে হবে।এখন ওই একই বিক্রিয়া দুটির ওপর নির্ভর করে তোমার কাছে বিক্রিয়া দুটিতে পার্থক্যের কারণ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলো এবং উত্তর হিসেবে তিনটি তথ্য দেওয়া হলো: i. সক্রিয়তাক্রমে কপারের অবস্থান ii. বিক্রিয়ক অনুসমূহের তুলনামূলক পরিমাপ iii. এসিড দুটির জারণ ধর্মের পার্থক্য উপরিউক্ত তথ্যের ওপর ভিত্তি করে তোমার কাছে জানতে চাওয়া হলো: নিচের কোনটি সঠিক? . i ii . i iii . ii iii . i, ii iii
উত্তর দিতে গেলে তোমাকে একাধিক তথ্যের বিশ্ল্নেষণের ভিত্তিতে এই প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। তোমরা জান যে হাইড্রোজেনের (H) নিচের যেসব মৌল আছে এরা হাইড্রোজেনকে প্রতিস্থাপিত করতে পারে না। যেহেতু কপার (Cu) মৌলটি H-এর নিচে সেজন্য (a) বিক্রিয়াটি ঘটছে না। সুতরাং প্রশ্নটির উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রে (i) সক্রিয়তাক্রমে কপারের অবস্থানতথ্যটির কার্যকারিতা রয়েছে।
কিন্তু  4H2O+2NO+[O];®(b) বিক্রিয়ার ক্ষেত্রে HNO3 একইসঙ্গে জারক (HNO3 (লঘু) Cu(NO3)2+H2O) ভূমিকা পালন করে।® CuO) এবং অ্যাসিডের (CuO + HNO3®Cu +[O] বিক্রিয়ক HNO3 গাঢ় বা লঘু যেকোনো ক্ষেত্রেই Cu-এর সঙ্গে বিক্রিয়া করবে। কিন্তু HCl গাঢ় বা লঘু যেকোনো ক্ষেত্রেই Cu-এর সঙ্গে বিক্রিয়া করবে না। সুতরাং উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রে তথ্য (ii) বিক্রিয়ক অণুসমূহের তুলনামূলক পরিমাপএর কোনো কার্যকারিতা নেই।
বিক্রিয়া (a)- এই জারণবিজারণ অনুপস্থিত কিন্তু বিক্রিয়া (b) তে এই জারণবিজারণ উপস্থিত। কাজেই তথ্য (iii) অ্যাসিড দুটির জারণ ধর্মের পার্থক্যপ্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে বিবেচনা করতে হবে।
কাজেই তোমরা বুঝতেই পারছ যে তোমার পাঠ্যবইয়ের একাধিক তথ্যের বিশ্লেষণের মাধ্যমে তোমাকে প্রশ্নের উত্তরে উপনীত হতে হবে। অন্যান্য বিষয়ের ক্ষেত্রেও রকম নতুন পরিস্থিতির আলোকে তোমাকে পাঠ্যবইয়ের একাধিক তথ্য বিচারবিশ্লেষণ করে প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। ব্যাখ্যামূলক বা সৃজনশীল অংশের প্রশ্নসমূহের উত্তর দেওয়ার আগে শিক্ষার্থীর সামনে একটি নতুন পরিস্থিতি তুলে ধরা হবে। এই নতুন পরিস্থিতি হচ্ছে দৃশ্যকল্প/উদ্দীপক। এই উদ্দীপকটি পাঠ্যবইয়ের তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা হয়। পাঠ্যবইয়ের বিষয়বস্তুকে শিক্ষার্থী কতটুকু বুঝতে পেরেছে তা যাচাই করার জন্য উদ্দীপকটি তৈরি করা হয়। উদ্দীপকটির মধ্য দিয়ে একজন শিক্ষার্থী পাঠ্যবইয়ের মূল বিষয়বস্তুর মধ্যে প্রবেশ করবে।
এই উদ্দীপক/দৃশ্যকল্পের ওপর ভিত্তি করে চারটি প্রশ্ন করা হয় (, , , )প্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে একজন শিক্ষার্থীকে সাধারণত উদ্দীপকে যেতে হবে না। অর্থাৎএবংপ্রশ্ন দুটি উদ্দীপকের ওপর সরাসরি নির্ভরশীল নয়। তবে পরোক্ষভাবে নির্ভরশীল। অর্থাৎ উদ্দীপকটি পাঠ্যবইয়ের যে অধ্যায় বা অধ্যায়সমূহের বিষয়বস্তুর উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে, সেই অধ্যায় বা অধ্যায়সমূহ থেকেইএবংপ্রশ্নটি করা হবে।
সৃজনশীল অংশেপ্রশ্নটি তোমার স্মরণশক্তিকে যাচাই করার জন্য দেওয়া হয়। অর্থাৎ তুমি পাঠ্যবইয়ের কোনো তথ্য মুখস্থ করে এই অংশের উত্তর দিতে পারবে। যেমন ফটিকের মামার নাম কী? বাংলাদেশের আইন পরিষদের নাম কি? বাংলাদেশের অর্থনীতিতে প্রধানত কয় ধরনের শিল্প রয়েছে? কোন আমলে বাংলায় চিত্রশিল্পের বিকাশ ঘটেছিল? তাপ পরিবাহকত্ব কাকে বলে? শীর্ষ মুকুল কাকে বলে? ইত্যাদি প্রশ্নের মাধ্যমে শিক্ষার্থীর পাঠ্যবইয়ের কোনো তথ্য স্মরণ করার ক্ষমতাকে মূল্যায়ন করা হয়। এই প্রশ্নের নম্বর বরাদ্দ ১। সাধারণতঅংশের প্রশ্নের উত্তরের জন্য তোমাকে একটি শব্দ বা একটি বাক্যের বেশি লিখতে হবে না। যদি প্রশ্নের চাহিদা অনুযায়ী দরকার পড়ে তবে সর্বোচ্চ তিন বাক্যের মধ্যে তোমার উত্তর সীমাবদ্ধ রাখাটা বাঞ্ছনীয়।
শিক্ষার্থী পাঠ্যবইয়ের কোনো তথ্য ভালোভাবে বুঝেছে কি না তা যাচাই করার জন্যপ্রশ্নটি করা হয়। মাখনকে অকাল তত্ত্বজ্ঞানী বলা হয়েছে কেন? গণতন্ত্রে নির্বাচনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা করো। কীভাবে প্রান্তিক উপযোগ মোট উপযোগের একটি অংশ? কীভাবে প্রাচীন বাংলার সংস্কৃতি গড়ে উঠে? তাপ মাধ্যমের সাহায্য ছাড়াও কীভাবে সঞ্চালিত হয় ব্যাাখ্যা কর। উদ্ভিদের শ্রেণীবিন্যাসে একাধিক ট্যাক্সন রাখা হয় কেন? ব্যাখা করোইত্যাদি প্রশ্নের মাধ্যমে শিক্ষার্থীর পাঠ্যবইয়ের কোনো তথ্য বোঝার ক্ষমতাকে মূল্যায়ন করা হয়।প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীকে তার পাঠ্যবইয়ের তথ্য স্মরণ রাখলেই হবে না তাকে সেই তথ্য বুঝতে হবে এবং বুঝে নিজের ভাষায় উত্তর দিতে হবে।প্রশ্নের নম্বর বরাদ্দ এবং এই অংশের উত্তর লিখতে গেলে সর্বোচ্চ ৫টি বাক্যের মাধ্যমে উত্তর দেওয়াটা বাঞ্ছনীয়। কিন্তু এর মানে এই নয় যে তোমাকে গুণে গুণে পাঁচ বাক্যেই উত্তর সমাপ্ত করতে হবে। তোমার প্রশ্নের চাহিদা অনুযায়ী বাক্যের সংখ্যা যদি কিছু কম বা বেশি হয় তাতে কোনো ক্ষতি নেই। মনে রাখতে হবে এই অংশের প্রশ্নের মাধ্যমে তোমার অনুধাবন করার দক্ষতাকে যাচাই করা হবে। অর্থাৎ পাঠ্য বইয়ের তথ্য (information) তুমি কতটুকু বুঝতে পেরেছ তা তোমাকে তোমার উত্তরের মাধ্যমে প্রকাশ করতে হবে

সৃজনশীল প্রশ্নের (ব্যাখ্যামূলক অংশ) তৃতীয় অংশ অর্থাৎপ্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে তোমাকে নতুন পরিস্থিতিটি (উদ্দীপক/দৃশ্যকল্প) ভালো করে বুঝে পড়তে হবে। কেননাঅংশের উত্তর দেওয়ার জন্য তোমাকে উদ্দীপকের সাহায্য নিতে হবে। সাধারণত পাঠ্যবইয়ের সুনির্দিষ্ট কোনো ধারণা, সূত্র, তত্ত্ব, নিয়ম, নীতি, সংজ্ঞা ইত্যাদি শিক্ষার্থী কতটুকু বুঝতে পেরেছে তা যাচাই করার জন্য উদ্দীপকটি তৈরি করা হয়। অর্থাৎ একজন শিক্ষার্থী পাঠ্যবইয়ের কোনো সুনির্দিষ্ট ধারণাকে উদ্দীপকের মধ্যে খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করবে।
যেমন উদ্দীপকে এমন একটি বাস্তব পরিস্থিতি দেখলে যেখানে একটি ছেলে/মেয়ে, বাবামা থেকে দূরে কোথাও অবহেলায় বা অযত্নে রয়েছে। এখন হয়তো সেই নতুন পরিস্থিতিতে ছুটি গল্পের কোনো উপমাটি প্রতিফলিত হয়েছে তা তোমার কাছে জানতে চাইতে পারে। এখন তুমি যদিছুটিগল্পেরপ্রভুহীন পথের কুকুরউপমাটি পড়ে থাক এবং বুঝে থাক তাহলে দেখবে সেই উপমার ধারণাটি উদ্দীপকে প্রতিফলিত হয়েছে। উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রে তুমি তখন সেই প্রভুহীন পথের কুকুর উপমাটি তুলে ধরবে, ফটিকের ক্ষেত্রে কীভাবে সেই উপমাটি প্রযোজ্য হয়েছে এবং নতুন পরিস্থিতিতে কেন উপমাটি প্রযোজ্য হবে তা ফটিকের অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাখ্যা করতে হবে। তোমার অন্যান্য বিষয়ের ক্ষেত্রেও দেখবেঅংশে তোমার কাছে তোমার পাঠ্যবইয়ের কোনো সুনির্দিষ্ট কোনো ধারণা, সূত্র, সংজ্ঞা, নিয়মনীতি, তত্ত্ব ইত্যাদি জানতে চাওয়া হয়েছে। পাঠ্যবইয়ের নির্বাচন পদ্ধতি/ জাতীয় বাজেটের প্রকৃতি/ মুঘল আমলের সামাজিক অবস্থা/ কোনো পাতের তাপ পরিবাহকত্ব নির্ণয়/ অক্সিন নামক বৃদ্ধিকারক রাসায়নিক পদার্থ ইত্যাদি ধারণাসমূহের প্রয়োগ করতে চাইলে উপরিউক্ত সুনির্দিষ্ট ধারণাসমূহের আলোকে উদ্দীপটি তৈরি করা হবে। উদ্দীপকটি হবে সম্পূর্ণ নতুন এবং বাস্তবজীবনের সঙ্গে সম্পর্কিত। শিক্ষার্থী এই অপরিচিত নতুন পরিস্থিতির মধ্যে উপরিউক্ত সুনির্দিষ্ট ধারণাকে খুঁজে বের করবে। সেই ধারণাটি পাঠ্যবইয়ের তথ্যের আলোকে ব্যাখ্যা করবে এবং নতুন পরিস্থিতিতে (উদ্দীপকের মধ্যে) সেই সুনির্দিষ্ট ধারণাটি কীভাবে প্রতিফলিত হয়েছে তা লিখবে।
প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীকে তার নিজস্ব শব্দচয়ন বাক্যগঠন ব্যবহার করতে হবে। পূর্ব থেকে প্রস্তুতকৃত কোনো নোট মুখস্থ করে এইপ্রশ্নের উত্তর দেওয়া সম্ভব হবে না। শিক্ষার্থী তার নিজস্ব প্রজ্ঞা মেধা ব্যবহার করে এই প্রশ্নের উত্তর দেবে। এইপ্রশ্নের জন্য নম্বর বরাদ্দ এবং উত্তর সর্বোচ্চ ১২ বাক্যে হওয়া বাঞ্ছনীয়। এর মানে এই নয় যে তোমাকে ১২ বাক্যেই উত্তর সমাপ্ত করতে হবে। তোমার প্রশ্নের উত্তরের চাহিদা অনুযায়ী বাক্য সংখ্যা কিছু কম বা বেশি হবে। কোনো কোনো বিষয় যেমন রসায়ন, পদার্থ, কৃষি, গার্হস্থ্য অর্থনীতি ইত্যাদি বিষয়গুলোতেঅংশে বিভিন্ন সূত্র প্রয়োগের মাধ্যমে ফলাফল সংখ্যায় নির্ধারণ করতে হতে পারে। তখন কিন্তু তোমাকে কোনো পূর্ণাঙ্গ বাক্যই ব্যবহার নাও করতে হতে পারে।
প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রেও তোমাকে উদ্দীপক আশ্রয়ী হতে হবে। অর্থাৎ উদ্দীপকটির মধ্য দিয়ে তুমি পাঠ্যবইয়ের মূল বিষয়বস্তুতে প্রবেশ করবে এবং পাঠ্যবইয়ের একাধিক তথ্য ব্যবহার করে নিজস্ব বিচার বিশ্লেণের মাধ্যমে তোমাকে এইপ্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। ধরা যাক উদ্দীপকে এমন একটি বাস্তব ঘটনা দেখলে যেখানে ইঙ্গিত রয়েছে একটি ছেলে/মেয়ে পিতামাতার থেকে দূরে শহরে যান্ত্রিক অনুভূতিশূন্য জীবনে অনাদরে অবহেলায় মানুষ হচ্ছে।
এখনঅংশের প্রশ্নের উত্তরে যদি তোমার কাছে জানতে চাওয়া হয় যে উদ্দীপকের জীবন ব্যবস্থা ফটিকের কাম্য ছিল কি না তখন তোমাকে উদ্দীপকে ছেলে/মেয়ের জীবন ব্যবস্থাটি আগে বুঝতে হবে (উদ্দীপকের জীবন ব্যবস্থায় শহরের যান্ত্রিক অনুভূতিশূন্য জীবন ব্যবস্থার প্রতিফলন থাকবে) ফটিকের কোলকাতায় অবস্থানের মানসিক অবস্থা এবং গ্রামে বসবাসের মানসিক অবস্থার আলোকে তোমাকে উত্তরের দিকে ধাবিত হতে হবে অর্থাৎ শহরকেন্দ্রিক (যা শিক্ষার্থী উদ্দীপক থেকে বুঝে নেবে) গ্রাম কেন্দ্রিক জীবন ব্যবস্থার তুলনামূলক আলোচনা করতে হবে এবং ফটিক কোন জীবন ব্যবস্থায় স্বচ্ছন্দ/আনন্দিত ছিল তা তুমি যুক্তি দিয়ে বুঝিয়ে দেবে

রসায়ন বিষয়ের বিক্রিয়াটি লক্ষ কর
a. Cu + HCl (লঘু)= wewµqv nq bv, কিন্তু
b. 3Cu + 8HNO3 (jNy) = 3Cu(NO3)2 + 4H2O + 2NO

সৃজনশীল অংশে বিক্রিয়া দুটির পার্থক্যের কারণ জানতে চাইলে চারটি বিকল্প উত্তর থেকে একটি বেছে নেওয়ার যে ব্যাখ্যাটি বহু নির্বাচনী প্রশ্নের আলোচনা করার সময় দেওয়া হয়েছে সেই ব্যাখ্যাটিই তোমাকে নিজের ভাষায় গুছিয়ে লিখতে হবে। অর্থাৎ সৃজনশীল প্রশ্নেরঅংশের উত্তর দিতে গেলে তোমাকে তোমার পাঠ্যবইয়ের একাধিক তথ্যের আলোকে উদ্দীপকের তথ্যকে বিচারবিশ্লেষণ করতে হবে। অন্যান্য বিষয়ের ক্ষেত্রেও রকম নতুন পরিস্থিতির আলোকে তোমাকে পাঠ্যবইয়ের একাধিক তথ্য বিচারবিশ্লেষণ করে প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।এইপ্রশ্নের নম্বর এবং উত্তর সর্বোচ্চ ১৫ বাক্যে সমাপ্ত হওয়া বাঞ্ছনীয়। তবে তোমার প্রশ্নের উত্তরের চাহিদা অনুযায়ী বাক্যের সংখ্যা কিছু কম বা বেশি হতে পারে। এখানে উল্লেখ্য যে এই পদ্ধতিতে খুব বেশি লেখার সুযোগ নেই। কেননা একজন শিক্ষার্থীকে উদ্দীপক পড়ে এবং বুঝে উত্তর দিতে হবে। তাই যে সময়টুকু একজন শিক্ষার্থী লেখার জন্য পাবে সেই সময়ে তার পক্ষে যতটুকু লেখা সম্ভব ততটুকু উত্তর প্রত্যাশিত। ক্ষেত্রে বিজ্ঞ উত্তরপত্র মূল্যায়নকারীদের তাঁদের বিবেচনা বোধের প্রয়োগ করার অনুরোধ জানাচ্ছি। দক্ষতা স্তরের (জ্ঞান, অনুধাবন, প্রয়োগ উচ্চতর দক্ষতা) ওপর ভিত্তি করে শিক্ষার্থীকে নম্বর প্রদান করতে হবে। পরীক্ষার্থী প্রত্যাশিত দক্ষতা স্তর অনুযায়ী লিখতে পারলে ওই দক্ষতা স্তরের জন্য বরাদ্দকৃত পূর্ণ নম্বর পাবে।

(সংগৃহীত)

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s